আবহাওয়া বিশ্বঘড়ি মুদ্রাবাজার বাংলা দেখা না গেলে                    
শিরোনাম :
ঝালকাঠির জেলার ও জেল সুপারের বিরুদ্ধে দুদক’র কাছে দূর্নীতি-আসামী নির্যাতনের অভিযোগ      শিগগিরই নদীমাতৃক বরিশাল-ঝালকাঠিসহ ৯ জেলা রেল নেটওয়ার্কের আওতায়      নকলে বাঁধা দেয়ায় শিক্ষককে ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন জেএসসি পরীক্ষার্থী!      বিএনপির সাংগঠনিক ত্রুটির কথা খালেদা জিয়াকে জানালেন উপদেষ্টারা      নির্বাচনে অংশ নিলে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আসন বন্টন করবে বিএনপি      পিইসি ও জেএসসি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষাভীতি কাটিয়ে তোলে: প্রধানমন্ত্রী      পদত্যাগ করলেন মুগাবে: কে হচ্ছেন জিম্বাবুয়ের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট?      
স্লেজিংয়ে খুব মজা পান সাব্বির: দিন শেষে সমান সমান বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া
Published : Tuesday, 5 September, 2017 at 3:08 AM
স্লেজিংয়ে খুব মজা পান সাব্বির: দিন শেষে সমান সমান বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়াস্পোর্টস ডেস্ক: স্লেজিং। অস্ট্রেলিয়া দল যেটিকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল একটা সময়ে। স্টিভ ওয়াহর বিশ্বজয়ী দল সম্ভবত স্লেজিংয়েও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ছিল! এখনকার অস্ট্রেলিয়াও কম যায় না। স্টিভেন স্মিথের দলের খেলোয়াড়রা নাকি সিংহের মতো দল বেধে ব্যাটসম্যানকে স্লেজিংয়ে বিদ্ধ করেন। একেক সময় একেক দল। কিন্তু সেই অস্ট্রেলিয়াকে পাল্টা স্লেজিংয়ে যে খেলার মতোই জবাব দিয়ে যাচ্ছে টাইগাররা তা খুব বোঝা যাচ্ছে। আর সোমবার চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনের শেষে সাব্বির রহমান তো সাফ বলে গেলেন, স্লেজিং করলে খুব মজা পান ব্যাটিংয়ে। মনটা থাকে ফুরফুরে!
এদিন বিপর্যয়ের মধ্যে অধিনায়ক মুশফিুকর রহীমের সাথে দলকে টেনে নিয়ে যাওয়া মহামূল্যবান ১০৫ রানের ষষ্ঠ উইকেট জুটি সাব্বিরের। ক্যারিয়ার সেরা ৬৬ রান করে সাব্বির আউট। মুশফিক আছেন। আছেন নাসির। ৬ উইকেটে ২৫৩ রান নিয়ে ভয় উড়িয়ে দ্বিতীয় দিনের আগে প্রায় সমানে সমানই টাইগাররা।
নাথান লায়নের আরও একটি ৫ উইকেট-কীর্তিতে অস্ট্রেলিয়া তুলে নিয়েছে বাংলাদেশের ৬ উইকেট। বাংলাদেশও মুশফিকুর রহিম আর সাব্বির রহমানের ব্যাটে তুলেছে ২৫৩ রান।
অস্ট্রেলিয়া যদি আর একটি উইকেট নিত অথবা সাব্বিরের উইকেটটি যদি অক্ষত থাকত, তাহলে অন্য কিছু হলেও হতে পারত। আপাতত বলা যেতে পারে চট্টগ্রাম টেস্টে দুই দলের অবস্থানই সমান। কাল দ্বিতীয় দিনের সকাল তাই খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই জায়গা থেকে ঘটে যেতে পারে অনেক কিছু। বাংলাদেশ নিজেদের সংগ্রহটাকে আরও বাড়িয়ে নিতে পারে, অস্ট্রেলিয়াও বাংলাদেশকে গুটিয়ে দিতে পারে দ্রুতই।
আপাতত মুশফিক-সাব্বিরের ওই জুটিটাকে ধন্যবাদ দিয়ে দেওয়া যাক। ১১৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সামনে যখন দ্রুত গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা, ঠিক তখনই দাঁড়িয়ে যান মুশফিক-সাব্বির। এ জুটি স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ১০৫ রান। সাব্বির তাঁর স্বভাবসুলভ ব্যাটিং করেছেন। কিন্তু সেটা হিসাব কষে। মুশফিক তো ছিলেন বরাবরই ধীর-স্থির। সাব্বির ৬৬ রান করে লায়নের বলে শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে স্টাম্পিংয়ের শিকার না হলে বাংলাদেশের সংগ্রহটা আরও বাড়তে পারত। মুশফিক অবশ্য ১৪৯ বল খেলে ৬২ রান করে দিনটা পার করেই এসেছেন। সাব্বিরের বিদায়ের পর নাসির হোসেনের অপরাজিত ১৯ রানে (৩৩ বলে) বাংলাদেশ দেখছে মোটামুটি বড় সংগ্রহের স্বপ্ন।
অথচ সকালটা অন্য রকম ছিল বাংলাদেশের জন্য। লায়নের ঘূর্ণিতে দলীয় ১৩ রানের মাথায় তামিম ইকবাল আর ২১ রানে ইমরুল কায়েস এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়লে শুরুটা ছিল বিপর্যয়কর। ওই লায়ন পরে তুলে নেন সৌম্য সরকার (৩৩) আর মুমিনুল হকের (৩১) দুটি উইকেট। তাঁরাও এলবিডব্লু। এ দিয়েই একটি রেকর্ডই গড়ে ফেললেন এই অফস্পিনার। টেস্ট ইতিহাসে প্রথম বোলার হিসেবে প্রতিপক্ষের প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে এলবিডব্লু  করলেন লায়ন।
এমন একটা পরিস্থিতিতে সাকিব আল হাসানের ওপর ভরসা ছিল। তিনি বেশ খেলছিলেনও। ২৪ রান করে অ্যাশটন অ্যাগারের বলে উইকেটের পেছনে ম্যাথু ওয়েডকে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন তিনি। ১১৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তখন ধুঁকছে। আউট হওয়ার আগে অধিনায়ক মুশফিকের সঙ্গে ৪৯ রানের জুটি গড়েছিলেন। সাকিবকে হারিয়ে চট্টগ্রামের জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে যখন রাজ্যের আক্ষেপ, মুশফিক সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন ঠিক সেই সময়। সাব্বিরও তাঁকে সঙ্গ দিলেন। রান তোলায় মুশফিকের চেয়ে এগিয়েও ছিলেন। তবে শেষ বিকেলে লায়নের পঞ্চম উইকেট হয়ে হয়েছেন হরিষে-বিষাদ।
ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের স্পিনারদের হাতে নাকাল হতে দেখেই অস্ট্রেলিয়া আজ নিজেদের একাদশ সাজিয়েছিল একজন পেসারকে নিয়ে। ১৯৭৮ সালের পর এমনটা এই প্রথমই। ১৯৩৮ সালের পর এই প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসেই স্পিন দিয়ে শুরু করেছিল বোলিং আক্রমণ। দিন শেষে নিজেদের পরিকল্পনাটা কাজে আসায় খুশি হতেই পারেন কোচ ড্যারেন লেম্যান। তবে দিন শেষে চিন্তিত তিনি হবেন। মুশফিক-নাসিরের জুটিটা বিচ্ছিন্ন না করা পর্যন্ত চট্টগ্রাম টেস্টের নিয়ন্ত্রণটা যে অস্ট্রেলিয়ার হাতে উঠছে না কিছুতেই।
১১৩ বলে ৬ চার এক ছক্কায় দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে এমনিতে বেশ ফুরফুরে মেজাজে ছিলেন সাব্বির। ১১৭ রানে ৫ উইকেট ফেলে দেওয়ার পর এই জুটি ভাঙতে স্মিথের ফিল্ডাররা  সাব্বিরকে কথার বাণে বিদ্ধ করতে থাকেন। 
মুখ সমানে চলেছে সাব্বিরেরও। সংবাদ সম্মেলনে অস্বীকার করেননি, গোপনও করতে চাননি। বরং স্লেজিং খেলার মজার একটা অংশ মেনে নিয়েই হাসিমুখে বলে দিলেন, ’খেলার মাঠে কারও সঙ্গে সম্পর্ক ভালো হয় না। ওরা স্লেজিং করে, আমিও করি। আমি ওদের সঙ্গে কথা বলি ফ্রি হওয়ার জন্যই। তেমন কিছু না। স্লেজিং করলে আমি আরও মজা পাই ব্যাটিংয়ে। উপভোগ করি স্লেজিং করলে। স্লেজিং ফিরিয়েও দেই। এটা আমি অনেক উপভোগ করি।'








খেলাধুলা পাতার আরও খবর
আজকের রাশিচক্র
সম্পাদক : ইয়াসিন আহমেদ রিপন

ঝর্ণা মঞ্জিল, মাষ্টার পাড়া, মাইজদী, নোয়াখালী। ঢাকা: ৭৯/বি, এভিনিউ-১, ব্লক-বি, মিরপুর-১২, ঢাকা-১২২৬, বাংলাদেশ।
ফোন : +৮৮-০২-৯০১৫৫৬৬, মোবাইল : ০১৯১৫-৭৮৪২৬৪, ই-মেইল : info@bdhotnews.com