আবহাওয়া বিশ্বঘড়ি মুদ্রাবাজার বাংলা দেখা না গেলে                    
শিরোনাম :
রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনীর নৃশংসতা যুদ্ধাপরাধের শামিল: মার্কিন সিনেটর      কুমিল্লায় নগরীতে যুবককে গলা কেটে হত্যা      এমপি কেয়া চৌধুরী’র উপর হামলার ঘটনায় তারাসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা      সৈয়দপুরে হঠাৎ দেখা কাদের-ফখরুলের      সংসদে প্যারাডাইস-পানামা পেপারসে বাংলাদেশিদের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশের দাবি      সোমবার দুপুরের মধ্যে মুগাবের পদত্যাগ চায় তার নিজ দল      প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বনাম কোচিং       
এয়ারপোর্টের জনপ্রিয় ম্যাজিস্ট্রেট ক্ষোভ ঝাড়লেন ইউএনওকে প্রথমে জামিন না দেওয়ায়
Published : Thursday, 20 July, 2017 at 1:15 AM
এয়ারপোর্টের জনপ্রিয় ম্যাজিস্ট্রেট ক্ষোভ ঝাড়লেন ইউএনওকে প্রথমে জামিন না দেওয়ায়ডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশ এয়াপোর্টের জনপ্রিয় ম্যাজিস্ট্রেট ইউসুফ (Bansuri M Yousuf, যিনি Magistrates, All Airports of Bangladesh, পেজের ক্রিয়েটর এবং এডমিন) তার ফেইসবুকে সকালে  ইউএনও'র জামিন না-মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করায় বিচারকের প্রতি ক্ষোভ ঝাড়লেন। তিনি তার ফেইসবুক ষ্ট্যাটাসে লিখেন, "প্রসঙ্গঃ জামিনযোগ্য অপরাধে ইউএনও'র জামিন না-মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ
ফৌজদারী মামলায় আইন অপরাধকে দুই ভাগে ভাগ করে দিয়েছে। জামিনযোগ্য এবং জামিন অযোগ্য।
লেম্যান হিসেবে আপনার-আমার মনে হতে পারে, জামিনযোগ্য অভিযোগে বিচারক জামিন দিতে পারে, নাও দিতে পারে এবং জামিন অযোগ্য অভিযোগে জামিন দিতে পারবে না। না, ভুল।
আইনের ভাষায়, জামিনযোগ্য বলতে জামিন বাধ্যতামূলক। কেবল জামিন অযোগ্য অভিযোগে বিচারকের এখতিয়ার আছে জামিন মঞ্জুর না করার।
আরও স্পষ্ট করে বলি। জামিনযোগ্য অভিযোগে কেউ জামিন চাইলে বিচারক জামিন মঞ্জুর করতে বাধ্য। আর বাধ্য মানে বাধ্য। এর মধ্যে যদি কিন্তু জাতীয় কিছু নেই, স্রেফ বাধ্য। এটা অভিযুক্তের অধিকার। বিচারক কেবল এক্ষেত্রে জামিনের জিম্মা এবং টাকার অংক কিংবা অন্য শর্ত ঠিক করে দেবেন।
কিন্তু কোন বিচারক যদি জামিনযোগ্য অভিযোগে জামিন মঞ্জুর না করেন, পরিষ্কারভাবে তা আইনের লঙ্ঘন। আর আইন লঙ্ঘন করাটা অপরাধ বলেই আমরা জানি।
আমরা লেম্যান আইন না জেনে আইন লঙ্ঘন করলে সেটা অপরাধ হবে, বিচার হবে। কোন বিচারক আইন জেনেও আইন লঙ্ঘন করলে সেটা অপরাধ হবে না কেন?
সকালে জামিন না দিয়ে বিকালে আবার জামিন দিয়ে কি বোঝালেন মাননীয় বিচারক? সকালে আইন মানিনা, বিকালে মানি?
বিচারক গুড-ফেইথে বিচারকার্যে ভুল করলে তাকে আইনী সুরক্ষা দেয়া আছে। কিন্তু এসব এবিসিডি পর্যায়ের ভুলকে বিচারকের অযোগ্যতা বলে ধরে নেয়ারও নিয়ম আছে।
পূর্বের রেকর্ডমতে, এ ধরণের অযোগ্যতার ক্ষেত্রে মহামান্য উচ্চ-আদালত ম্যাজিস্ট্রেটকে অযোগ্য বিবেচনায় নিয়ে তার ম্যাজিস্টেরিয়াল ক্ষমতা সীজ করার নির্দেশ দিয়ে বিচার বিভাগের সুনাম ও যোগ্যতা অক্ষুন্ন রেখে থাকেন।
নিশ্চয় বর্তমান ও ভবিষ্যতেও এ সুনাম ও যোগ্যতা অক্ষুন্ন থাকবে।"
এছাড়াও অন্য এক ষ্ট্যাটাসে লিখেন,"পঞ্চম শ্রেণীর একটি শিশু বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে হৃদয়ে ধারণ করেছে, আপনাদের কয়জন পারবেন এভাবে ধারণ করতে?
ওকে ফাইন, আপনার দৃষ্টিতে এটা বিকৃত ছবি?
এদেশের একজন তৃতীয় শ্রেণীর নাগরিক হিসেবে একটা প্রশ্ন করি। গাটস থাকে তো উত্তর দিয়ে যান।
এ ছবিকে দাওয়াত কার্ডে ছাপানোর জন্য ইউএনও'র বিরুদ্ধে মামলা করলেন, ছবিটি আঁকার জন্য মুল অপরাধী হিসেবে শিশুটির বিরুদ্ধে মামলা করলেন না কেন?
বঙ্গবন্ধু কারো ব্যাক্তিগত বা গোষ্ঠীর সম্পদ নাহ। ষোলকোটি মানুষের হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু ষোলকোটি প্রকারে বিচরণ করতে পারে।
এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার পর ভবিষ্যতে শুধু শিশুই নাহ, বঙ্গবন্ধুর ছবি আঁকার জন্য কোন শিল্পীই সাহস করবে না। রাইট ইট ডাউন।"
অন্য আরেক ষ্ট্যাটাসে ছবিটি শেয়ার করে লিখেন,"বঙ্গবন্ধু আমার। আমার সন্তানের। দয়াকরে নাক গলাবেন না।"







আইন আদালত পাতার আরও খবর
আজকের রাশিচক্র
সম্পাদক : ইয়াসিন আহমেদ রিপন

ঝর্ণা মঞ্জিল, মাষ্টার পাড়া, মাইজদী, নোয়াখালী। ঢাকা: ৭৯/বি, এভিনিউ-১, ব্লক-বি, মিরপুর-১২, ঢাকা-১২২৬, বাংলাদেশ।
ফোন : +৮৮-০২-৯০১৫৫৬৬, মোবাইল : ০১৯১৫-৭৮৪২৬৪, ই-মেইল : info@bdhotnews.com