আবহাওয়া বিশ্বঘড়ি মুদ্রাবাজার বাংলা দেখা না গেলে                    
শিরোনাম :
নাগরিক সমাবেশে এমপিদের পোস্টার নিয়ে শো-ডাউন করল কর্মী-সমর্থকরা      আ,লীগ নেতা জাফরউল্যাহ'র পানামা পেপারসের পর বিএনপি নেতা মিন্টুর প্যারাডাইস পেপারস কেলেঙ্কারি      আত্রাইয়ে কালি মন্দিরের মূর্তি ভাংচুর      মার্কিন কংগ্রেসে উপস্থাপন করা হবে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য       সমাবেশে না আসলে বেতন কাটা যাবে: বিএনপির মহাসচিব      সিএনজি চালকদের উবার ও পাঠাও বন্ধে কর্মসূচি দেওয়ায় ক্রুদ্ধ যাত্রীরা      কাঠালিয়ায় ইউএনও-পিআইও দ্বন্দ্বে চাল আত্মসাতের কাহিনী ফাঁস!      
টিন সাইফুলকে ঘিরে তোলপাড় গোপালগঞ্জ
Published : Wednesday, 27 July, 2016 at 10:11 PM
টিন সাইফুলকে ঘিরে তোলপাড় গোপালগঞ্জ
স্টাফ রিপোর্টার : গোপালগঞ্জের টিন সাইফুলের বহুমুখি প্রতারণা নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরা খবর ছিল ‘টক অব দি টাউন।’ গতকাল সকাল থেকে গোপালগঞ্জ জেলা শহরের সর্বত্র ছিল টিন সাইফুলের আলোচনা-সমালোচনা। তার বহুমুখি ধান্ধাবাজি, ধূর্ততা, দালালি-তদবিরবাজির পাশাপাশি রাতারাতি অলৌকিকভাবে শত শত কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে মানুষের মুখে মুখে। সরকারি-বেসরকারি অফিস, আদালত অঙ্গন থেকে শুরু করে শহর ও শহরতলীর হোটেল রেস্তোরাতেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠে টিন সাইফুল। তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয় গোপালগঞ্জের আওয়ামীলীগ ও বিএনপি নেতা কর্মিদের মধ্যেও। অনলাইন দৈনিক সমূহে প্রকাশিত খবরা খবরের অংশ বিশেষ ও লিংকগুলো ফেইসবুকের মাধ্যমে দ্রুত ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় লাইক, শেয়ার আর মন্তব্যের ছড়াছড়ি। চলতে থাকে টিন সাইফুল বিরোধী মন্তব্য, নিন্দা আর প্রতিবাদের ঝড়। কারো কারো ফেইসবুক একাউন্টে এ সংবাদ লিংকের বিপরীতে সহস্রাধিক লাইক, প্রায় তিনশ’ মন্তব্য এবং দেড় শতাধিক শেয়ার করতেও দেখা গেছে। মন্তব্য কলামে সাধারণ পাঠক নানা মন্তব্যের পাশাপাশি টিন সাইফুলের আরো আরো অপকর্মের ফিরিস্তি তুলে ধরেছেন। জাতীয়তাবাদী যুবদলের নেতা টিন সাইফুলকে নিয়ে অতিমাত্রার মাখামাখির জন্য জেলা ও থানা আওয়ামীলীগের কয়েক শীর্ষ নেতাও তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন। দলীয় নেতা-কর্মিদের নানা প্রশ্নের মুখে বেশ বিব্রত অবস্থারও শিকার হন তারা।
অনলাইন পাঠকদের একজন জানিয়েছেন, টিন সাইফুল তার ঠিকাদারী কর্মকান্ড পরিচালনাকালে তারই সাইটের বালু সাপ্লাইয়ারকে নির্মমভাবে হত্যা করে। পরবর্তীতে ওই সাপ্লাই ব্যবসায়ির লাশটা পর্যন্ত গুম করে ফেলা হয়। ওই ঘটনায় সাইফুল গ্রেপ্তার হয়ে প্রায় দেড় বছর হাজতে ছিলেন। গোপালগঞ্জ থানাপাড়া এলাকার অপর পাঠক উল্লেখ করেন, আজকের টিন সাইফুল একসময় ফেন্সি সাইফুল নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন। তার বিরুদ্ধে এখনো ফেন্সিডিলের মামলা ঝুলছে আদালতে। জেলা শহরের চরসোনাকুর এলাকার বাসিন্দা হাফিজুর রহমান, শেখ জয়নাল, আরিফা খানমসহ কয়েকজন জানান, গোপালগঞ্জের শীর্ষ দালাল হিসেবে চিহ্নিত সাইফুল এখন জেলা আওয়ামীলীগের নীতি নির্ধারক হয়ে উঠেছেন। এক্ষেত্রে নবনির্বাচিত পৌর মেয়র ও সদর থানা আ’লীগের সভাপতি কাজী লিয়াকত আলী লেকুর হাত ধরেই অভাবনীয় উত্থান ঘটে সাইফুলের। গত পৌর নির্বাচনে কাজী লিয়াকত আলী লেকুর পক্ষে ব্যাপক শ্রম দিয়ে সাইফুল তার দৃষ্টি কাড়েন, মুহূর্তেই তিনি হয়ে উঠেন ওই আওয়ামীলীগ নেতার সবচেয়ে আস্থাভাজন ব্যক্তি। তার হাত ধরেই জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ প্রভাবশালী কয়েক নেতার ঘরের মানুষ বনে যান সাইফুল। আর তাকে পিছু ফিরে তাকাতে হচ্ছে না।
শহরের মান্দারতলার বাসিন্দা নওরীন নাহার তার ফেইসবুক পাতায় লিখেছেন, ‘সাইফুলরা পারে, সাইফুলরাই পারবে।’ কাজী লিয়াকত আলী লেকুকে সব ধরনের সহায়তা দিয়ে পৌর মেয়র নির্বাচিত করার পর পরই গভীর কৃতজ্ঞতা দেখিয়েছেন লেকু। তিনি মেয়রের চেয়ারে বসেই কৃতজ্ঞতা স্বরুপ এক কোটি টাকার টেন্ডার কাজ পাইয়ে দিয়েছেন টিন সাইফুলকে। পাল্টা বাহাদুরী দেখাতে সাইফুলও ভুল করেনি। সে আবার সোনার নৌকা বানিয়ে তা উপহার হিসেবে তুলে দেন লিয়াকত আলী লেকুর হাতে। কী সেলুকাস ! সোনার নৌকা বলে কথা, তা চোর, গুন্ডা, বদমাইশ যার হাতেই থাকুক তার হাত থেকেই কুর্ণিশ করে নিয়ে ধন্য হতে হবে ? ছিঃ ছিঃ ছিঃ। ব্যক্তিত্ব পতনেরও একটা সীমা থাকা উচিত।
গোপালগঞ্জ শহরের নবীনবাগ এলাকার বাসিন্দা, একটি ছাত্র সংগঠনের জেলা পর্যায়ের নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে একটি মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন। তাতে তিনি উল্লেখ করেন, সাইফুলদের কী দোষ? তারা তো ছলে বলে কলে কৌশলে উর্দ্ধমুখি সিড়িতে আরোহন করার পাঁয়তারা চালাবেই। ক্ষমতাসীন দলের দায়িত্বশীল নেতা হয়ে আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে দালাল, চাটুকার, ভিন্ন দলের অত্যাচারী নেতাকে যদি ক্যান্সারের মতো লালন করেন-কার কী বলার থাকে? আর কয়েকটা দিন অপেক্ষা করেন, দেখবেন-এই যুবদলের সাইফুলই গোপালগঞ্জের আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগকে শাসন করবে, হয়ে উঠবে একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রক।
সদ্য নির্বাচিত এক ইউপি চেয়ারম্যান ফোন করে জানিয়েছেন ভিন্ন তথ্য। তিনি বলেন, এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাইয়ে দেওয়ার যে ‘ভয়ংকর বাণিজ্য’ চলে তার মূল মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকায় ছিলেন টিন সাইফুল। স্থানীয় পর্যায়ের আওয়ামীলীগ-যুবলীগ নেতারা সবাই এখন তার আজ্ঞাবহ। তাদের সমর্থন নিয়ে আর লেকু সাহেবের সহযোগিতায় সাইফুল সরাসরি থানা আওয়ামীলীগের দায়িত্বশীল পদ দখল করতে যাচ্ছেন। সবাই তাকিয়ে তাকিয়ে দেখুন আর জাতীয়তাবাদী ওই গুন্ডাটার পায়ের ধুলা কপালে মেখে নিতে প্রস্তুত থাকুন।
এরকম শত শত মন্তব্য, ঘৃণা আর প্রতিবাদের ক্ষোভ উচ্চারিত হয়েছে ফেইসবুকসহ বাংলা ব্লগসমূহের পাতায় পাতায়। জেলা যুবলীগের একজন নেতা ক্ষোভ ও দুঃখের সঙ্গে নানা কটাক্ষ মন্তব্যের পাশাপাশি একখানা ছবিও পাঠিয়েছেন। তাতে দেখা যাচ্ছে থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা আওয়ামীলীগ সেক্রেটারীর মাঝে দাঁড়িয়ে টিন সাইফুল দু’জনেরই কাধে হাত দিয়ে ছবি তুলেছেন। দলীয় একটা অনুষ্ঠানে এমন দৃষ্টিকটু ছবি সেশনকে তিনি ভৎর্সনা জানান।

আরো পড়ুন: গোপালগঞ্জের বহুমুখি প্রতারক এখন আওয়ামী কান্ডারি!!







রাজনীতি পাতার আরও খবর
আজকের রাশিচক্র
সম্পাদক : ইয়াসিন আহমেদ রিপন

ঝর্ণা মঞ্জিল, মাষ্টার পাড়া, মাইজদী, নোয়াখালী। ঢাকা: ৭৯/বি, এভিনিউ-১, ব্লক-বি, মিরপুর-১২, ঢাকা-১২২৬, বাংলাদেশ।
ফোন : +৮৮-০২-৯০১৫৫৬৬, মোবাইল : ০১৯১৫-৭৮৪২৬৪, ই-মেইল : info@bdhotnews.com